শিশুটিকে গ্যারেজের দিকে নিয়ে যান বৃদ্ধ মজিদ, ১০ মিনিট পর…

শিশুটিকে গ্যারেজের দিকে নিয়ে যান বৃদ্ধ মজিদ, ১০ মিনিট পর…
Loading...

কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলায় ৫৫ বছর বয়সসী আবদুল মজিদ নামের এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে বাকপ্রতিবন্ধী শিশুকে (১০) ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় ওই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।আজ সোমবার সকাল সাড়ে ১০টায় উপজেলার একটি রিকশা গ্যারেজে এ ঘটনা ঘটে। ওই শিশু জন্মগতভাবে বাকপ্রতিবন্ধী।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ভুক্তভোগী শিশুকে উদ্ধার করে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসেন স্থানীয়রা। পরে কর্তব্যরত চিকিৎসক আশঙ্কাজনক অবস্থা দেখে উন্নত চিকিৎসার জন্য দ্রুত কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণের পরামর্শ দেন। বর্তমানে শিশুটি কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

স্থানীয় এক নারী আমাদের সময়কে বলেন, প্রথমে আবদুল মজিদকে রিকশা চালিয়ে শিশুটিকে তার গ্যারেজের দিকে নিয়ে যেতে দেখি। পরে আমার সন্দেহ হলে রিকশার পিছু নেই। ১০ মিনিট পরে তার গ্যারেজের কাছে পৌঁছালে রাস্তার ওপরে শিশুটিকে রক্তাক্ত অবস্থায় দেখি। পরে স্থানীয় কয়েকজন যুবককে জানায়। পরে তারা আবদুল মজিদকে গ্যারেজের ভিতর থেকে আটক করেন।

শিশুটির দাদা আমাদের সময়কে বলেন, প্রায় প্রতিদিন শিশুটি আমার সঙ্গেই গরুর ঘাস কাটতে মাঠে যেত। কিন্তু আজ তাকে না পেয়ে আমি একাই মাঠে যাই। পরে এ ঘটনা শুনে দ্রুত বাড়িতে আসি।

শিশুর দাদা আরও বলেন, আমার নাতনি একেবারেই অসহায়। তার বাবা থেকেও নেই। মা তাকে নয় মাস বয়সে ফেলে অন্যত্র চলে যায়। এরপর থেকে আমিই তাকে দেখাশুনা করি। প্রতিবন্ধী ভাতা দিয়েই তার চিকিৎসা ও অন্যান্য খরচ চলে।

স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সদস্য বলেন, ‘ধর্ষক আবদুল মজিদের বিরুদ্ধে এর আগে আরও চারটি ধষর্ণের অভিযোগ রয়েছে। ওইগুলো স্থানীয়দের সহায়তায় মীমাংসা হয়।’

দেবিদ্বার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকার্তা (ওসি) মো. জহিরুল আনোয়ার বলেন, ‘এলাকাবাসি ধর্ষক আবদুল মজিদকে আটক করে পুলিশে সোর্পদ করেছে। আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। শিশুটির দাদা বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে একটি মামলা দায়ের করেন।’

Loading...